কোটা প্রসঙ্গ

কোটার পক্ষে বিপক্ষে অংশগ্রহণকারীদের ডাকাত টাইপের ভায়োলেন্স দেখে অবাক ও হতাশ হয়েছি অনেক।

অামাদের দেশের মানুষের মানসিকতা এতটা নিঁচে যে নেমে গেছে, এর আগে বুঝি নাই।

অান্দোলনকারীদের উপর পুলিশ ও ছাত্রলীগ নামধারীদের অাক্রমন; ভিসির বাড়িতে আন্দোলনকারীদের হামলা-ডাকাতি, ছাত্রলীগ নেত্রীর বস্ত্রহরণের চেষ্টা; এসব দেখে বাংলাদেশের বর্তমান ছাত্র সমাজের মানসিকতা, মেধার প্রয়োগ বুঝতে পারা যায়।

দিনকে দিন আমরা বর্বর হচ্ছি।
পাকিস্তানের দাস-প্রেত্মাতা বিএনপি-জামাত-হেফাজত চক্রের শক্তি বৃদ্ধি করছে বাংলাদেশের মানুষই।

জীবনে তিনটি অান্দোলনে সক্রিয়ভাবে ছিলাম।
মইন ইউ-এর সামরিক ছায়া সরকারের বিরুদ্ধে ছাত্র অান্দোলন, চবি ক্যাম্পাসকে শিবির মুক্ত করার অান্দোলন, যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের দাবিতে গণজাগরণ।
কোন অান্দোলনেই অামরা নিজেদের বিবেক বিসর্জন দিইনি।
কিন্তু এখন আন্দোলনের নামে পক্ষে-বিপক্ষে যা হয়, তা শুধু নোংরামি, বর্বরতা।

আন্দোলনের পক্ষের লোকেদের একেক পর এক প্রোপাগান্ডা (গুলিতে ছাত্র নিহত, মোরশেদার পায়ের রগ কাটা) ছড়ানোর স্টাইলটা একেবারে গোয়েবলসীয়।
সারা পৃথিবী এগিয়ে যাচ্ছে, অামরা পিছিয়ে গত শতাব্দীর ত্রিশ-চল্লিশের দশকে ফিরে যাচ্ছি।

অাবার ছাত্রলীগের পরিচয়বহনকারীদের দেখলাম, পুরো চম্বলের ডাকাতদের ভূমিকায় অবতীর্ণ হতে। একটি ভিডিওতে দেখা যাচ্ছে, ছাত্রলীগের পরিচয়বহনকারী এক ছেলে রড দিয়ে আন্দোলনকারীদের পেটাচ্ছে।

অান্দোলনকারী মেধাবীদের ভিসির বাড়িতে ডাকাতি দেখে ভয় পেয়েছি, এই ডাকাতরাই কি-না আগামী দিনের সচিব।

পুলিশের বর্বরতা বাংলাদেশের ইতিহাসের সমান্তরাল, তাদের 'খায়া ফেলার' অভ্যেস গেল না।

কোটার কারনে মেধার মূল্যায়ণ হয়নি, কথাটা ভুল; প্রাতিষ্ঠানিক তথ্য বলে প্রায় ৭০% সরকারি পদে কোটাবিহীনরা চাকুরি করছে।

তারপরও কাগজে কলমে থাকা ৫৫/৫৬% কোটা সময়ের সাথে বেমানান, তাই কোটা সংস্কারের দাবিটা যুক্তিযুক্ত কিন্তু এই দাবি আদায়ের প্রক্রিয়াটি ছিল বিবেকবর্জিত। অাবার বিপক্ষের লোকেদের সহিংস আচরণও মেনে নেয়া যায় না।

কোটা সংস্কার আন্দোলনের ফলস্বরূপ সকল কোটা বাতিল করা হয়েছে।
অাশা করি, মাননীয় নেত্রী বিষয়টি বিবেচনা করবেন।
বাতিল করার বদলে মুক্তিযোদ্ধা, প্রতিবন্ধী, নারী ও জাতিভিত্তিক কোটা পুনর্বিন্যাস করা যেতে পারে।

সবশেষে প্রাপ্তি/অপ্রাপ্তি কতটুকু, তা ভেবে দেখার বিষয়।
অামি অপ্রাপ্তিটাই বেশি দেখছি- চম্বলের ডাকাতদের সাথে বাংলাদেশের ছাত্র সমাজ, পুলিশ, ছাত্র সংগঠনগুলোর পার্থক্য খুঁজতে গিয়ে ঠগ বাছতে গাঁ উজাড় অবস্থা।

অামার বাবার মুক্তিযোদ্ধা সার্টিফিকেট নাই, তিনি এসব বিষয়ে উদাসীন ছিলেন, তাই কখনো এসব প্রক্রিয়ায় অংশগ্রহণ করেননি। সেকারনে, তাঁর সন্তানদের কোন কোটা নাই, তারপরও তাঁর তিন সন্তানই পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়েছে, দু'সন্তান বিসিএস ক্যাডার।
এরকম লাখো উদাহরণ আছে বাংলাদেশে।
যোগ্যতা থাকলে, মানুষের মূল্যায়ণ হয়, সে আপনি উড়ির চরের গরীব দিন-ঠিকা জেলের সন্তান হোন কিংবা ঢাকার স্বচ্ছল পরিবারের।

কিন্তু তারপরও কোটা কেন দরকার?
কারন, প্রতিবন্ধী, নারী, ক্ষুদ্র জাতিগোষ্ঠীদের মূলস্রোতের সাথে তাল মিলিয়ে নেয়ার জন্য।

অার, মুক্তিযোদ্ধা কোটা?
একাত্তরে যে দেড় থেকে অাড়াই লাখ মানুষ (মুক্তিযোদ্ধা) সাড়ে সাত কোটির জন্য (যা এখন প্রায় ১৬-১৭ কোটি) নিজেদের জীবনকে বাজিঘরের গুটির মত বিলিয়ে দিয়েছিল, তাঁদের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করবো না?

অামি নিমকহারাম হতে পারি না, আজ যাদের কাঁধে দাঁড়িয়ে আত্মপরিচয় পেয়েছি, স্বাধীন-সার্বভৌম রাষ্ট্র পেয়েছি, তাঁদের মাথায় ছাড়া অন্য কোথাও রাখার কথা চিন্তা করতে পারি না, পুরো বাঙালি জাতি তাদের চামড়া দিয়ে মুক্তিযোদ্ধাদের জুতা বানিয়ে দিলেও, মুক্তিযোদ্ধাদের প্রতি আমাদের ঋণ শোধ হবার নয়।

স্বাধীনতা সংগ্রাম, মুক্তিযুদ্ধ - এসব বাঙালি জাতির কাছে তেমন কোন মানে হয়তো রাখে না।
অন্ততঃ গত কয়েক সপ্তাহের ঘটনা থেকে এটি স্পষ্ট।
জাতি হিসেবে আমরা বরাবরই অকৃতজ্ঞ।
অামরা একটি অকৃতজ্ঞ ইতর জনপদের বাসিন্দা।

'মুক্তিযোদ্ধা কোটা' মুক্তিযোদ্ধাদের প্রতি বাংলাদেশ রাষ্ট্রের প্রদত্ত দক্ষিনা নয়, এটি কৃতজ্ঞতার স্মারক; কারন, এই মানুষগুলোর জন্য অামরা আজ সচিব হই, প্রথম শ্রেণীর চাকুরে হই; এরা একাত্তরে জীবন বাজি না রাখলে, অামাদের অধিকাংশই মেধাবীরা পাকিস্তানিদের অধীন চরম বৈষম্যেরর মাঝে কাজ করতে হতো।

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী কোটার বিষয়টি বাতিল না করে, সংস্কার করবেন দ্রুত আশা রাখি।
আর আন্দোলনের পক্ষ-বিপক্ষের সহিংসতাকারীদের বিচারের সন্মুখীন করা হোক, এসব বিষয়ে যত দ্রুত আইনি পদক্ষেপ নেয়া হয়, ততই মঙ্গল; এসব অন্ততঃ ভবিষ্যতের পাথেয় হয়ে থাকবে।

আজকাল মত প্রকাশ করতেও বিরক্ত লাগে, অাতঙ্কিত হই; এতটা প্রতিক্রিয়াশীল বাংলাদেশের মানুষ, কখন অাবার ডাকাতরা হাজির হয়...বাংলাদেশে মানুষের সংখ্যা দিন দিন কমছে, চারপাশে শুধু ডাকাতের অানাগোণা।



Comments

Popular posts from this blog

মুক্তিযুদ্ধে নারী নির্যাতনে পাকিস্তানি মানস

কল্পিত বিহারি গণহত্যাঃ একাত্তরের পরাজিত শক্তির অপকৌশল

বঙ্গবন্ধু হত্যাকান্ডে চীনের ভূমিকা ও ভাসানীর দায়